রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০৩:২৬ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সংসদ সদস্যের মানবিক উদ্যোগ: বাবার কষ্ট দেখে অসহায়দের কষ্ট দূর করতে হুইল চেয়ার বিতরণ দরিদ্রদের বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবায় সূর্যেরহাসি-র ‘ফ্রি হেলথ ক্যাম্প’ চাচা শ্বশুরের হাতে গৃহবধু খুন, পুকুরে ঝাপ দিয়ে প্রাণ রক্ষা স্বামীর কৃষক হত্যা মামলায় নারীসহ ৩ আসামির যাবজ্জীবন ময়মনসিংহে সাপের কামড়ে গৃহবধুর মৃত্যু বাসে উঠতে হিজড়াদের ধাক্কাধাক্কি, পড়ে গিয়ে পিছনের চাকায় পিষ্ট বৃদ্ধ ঈশ্বরগঞ্জকে আধুনিক ও স্মার্ট উপজেলা হিসেবে গড়তে চান রাসেল আমি জনতার চেয়ারম্যান,জনগণের খাদেম হয়েই কাজ করব: প্রদীপ গ্রামে ঢুকে বাড়িঘরে হামলা-ভাঙচুর, ২ জনকে কুপিয়ে হাসপাতালে ঈশ্বরগঞ্জে বঙ্গবন্ধু পরিষদের নতুন কমিটি: সভাপতি মনিরুল, সম্পাদক আনোয়ার

ঈশ্বরগঞ্জে আউশের ভালো ফলনে কৃষকের মুখে হাসির ঝলক

এহছানুল হক, ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি
  • আপডেট : বৃহস্পতিবার, ২৭ জুলাই, ২০২৩
  • ৪০৪ বার পড়া হয়েছে

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে চলতি মৌসুমে আউশ ধানের ভালো ফলন হয়েছে। কোথাও চাষিরা ধান কাটতে শুরু করেছে, আবার কোথাও শিগগিরই কাটা শুরু করবে। ফলন ভালো হওয়ায় কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে। কৃষকের পরিবারগুলোতেও দেখা যাচ্ছে খুশির ঝলক।

ধান চাষিরা বলছেন, আউশ ধান চাষে খরচ কম। সরকারি কিছু সহায়তা পাওয়া গেছে। বাজারে ধানের দাম ভালো। এ কারণে তারা এবার আউশ ধান চাষে ঝুঁকেছেন।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, গত আউশ মৌসুমে উজেলায় ২৪০ হেক্টর জমিতে আউশ ধানের চাষ হয়েছিল। এবার চাষ হয়েছে ৩২০ হেক্টর জমিতে। গত মৌসুমের চেয়ে এবার ৮০ হেক্টর বেশি জমিতে আউশ ধানের আবাদ করা হয়েছে। এবার আউশে ব্রিধান-৪৮,৮৫, ৯৮ এবং বিনাধান-১৯ জাতের ধানের চাষ হয়েছে।

কৃষি অফিস বলছে, এবার উপজেলার ৫০০ জন কৃষককে আউশ চাষে প্রণোদনা দেওয়া হয়েছে। প্রত্যেক কৃষক ৫ কেজি করে বীজধান, ১০ কেজি করে ডিএপি (ডাই অ্যামোনিয়াম ফসফেট) এবং ১০ কেজি করে এমওপি (মিউরেট অব পটাশ) সার পেয়েছেন।

বৃহস্পতিবার উপজেলার কয়েকটি এলাকায় খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, কোথাও কোথাও ধানগাছ থেকে শীষ বের হচ্ছে। আবার কোথাও ধান পাকতে শুরু করেছে। কোথাও আবার আউশ চাষিরা ধান কাটা, ধানের আঁটি বাঁধা এবং ধান মাড়াইয়ের কাজে ব্যস্ত।

উপজেলার বড়হিত ইউনিয়নের বড়হিত গ্রামের কৃষক আমিনুল(৪০) বলেন, এবারেই প্রথম আমার ৭০ শতাংশ পতিত জমিতে আউশ ধান চাষ করেছি। ফলনও খুব ভালো হয়েছে। এসময়ে খড়ের চাহিদা থাকায় ধান ক্ষেতে থাকতেই লোকজন খড়ের জন্য যোগাযোগ করছে। বাজারে ধানের দামও বেশ ভালো। উপজেলা কৃষি অফিসের পরামর্শ ও সহায়তায় আউশধান চাষ করেছি। তিনি আরও জানান, তার জমির ধান ৪-৫ দিনের মধ্যে কাটবেন। তারা আশা করছেন প্রতি কাঠায় ৪-৬ মণ ধান পাবেন।

একই ইউনিয়নের পাড়া পাঁচাশি গ্রামের শফিকুল ইসলাম(৫০)বলেন, কৃষি অফিসের পরামর্শে ৫০ শতাংশ জমিতে আউশ ধান চাষ করে বাম্পার ফলন পেয়েছি। ধান,বন(খড়) ও ধানের দামও ভালো।
তিনি বলেন, আউশ ধানের খরচ বোরো ধানের অর্ধেক। এবার আবহাওয়া খুব ভালো ছিল। কৃষি অফিস থেকে কিছু সহায়তাও পেয়েছি। ধানের এবার ভালো ফলন হয়েছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ নুসরাত জামান বলেন, এবছর আউশধানের ফলন ভালো হয়েছে। যাঁরা আউশধান চাষ করেছে ফলন ভালো হওয়ায় অন্য কৃষকরাও আউশধান চাষে উৎসাহী হচ্ছে। ধানের দাম ভালো। তা ছাড়া, আউশ ধান চাষে খরচ কম। উপজেলায় এবার ৩২০ হেক্টর বেশি জমিতে আউশ ধানের চাষ হয়েছে। উপজেলার আউশ চাষিরা কৃষি বিভাগের পরামর্শে সঠিক সময়ে আউশ ধান রোপণ ও বপনের কাজ করেছে। যে কারণে খুব ফলন ভালো হয়েছে ।

Please Share This Post in Your Social Media

আরও পড়ুন