সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ০৬:৩০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
ঈশ্বরগঞ্জে বোরো ধানের সমলয় প্রদর্শনীর ফসল কর্তন ও মাঠ দিবস পালন ঈশ্বরগঞ্জে ফ্যানের বাতাসে ধান উড়ানোর সময় বিদ্যুৎপৃষ্টে কৃষাণীর মৃত্যু হিট স্ট্রোক আপদ- আ শ মামুন আ.লীগের সংবর্ধনায় সিক্ত ব্যারিষ্টার উম্মি ফারজানা ছাত্তার, দিলেন স্মার্ট ঈশ্বরগঞ্জ বিনির্মানের প্রতিশ্রুতি বাবাদের কাঁধে সন্তানের লাশ, ছেলের মুখ থেকে বাবা ডাক শোনা হলো না শাহ্ আলমের নানা আয়োজনে ঈশ্বরগঞ্জে প্রাণীসম্পদ প্রদর্শনী মেলা অনুষ্ঠিত ঈশ্বরগঞ্জে অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্যের বাড়িতে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাটের অভিযোগ ঈদের নামাজ পড়ে বাড়ি ফেরার পথে যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা ঈশ্বরগঞ্জে সেলাইমেশিনসহ ঈদ উপহার পেল ২৩০ পরিবার এতিম শিশুদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ করলো “জনতার ঈশ্বরগঞ্জ”   

‘কাউসার ডাকলো মা, স্বর্ণা হবে ইউএনও’_ আপ্লুত হয়ে ইউএনও’র স্ট্যাটাস

এহসানুল হক, ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি
  • আপডেট : বুধবার, ১১ অক্টোবর, ২০২৩
  • ১৬৬ বার পড়া হয়েছে

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ে শুরু হয়েছে জেলা প্রশাসক মো. মোস্তাফিজার রহমানের উদ্ভাবনী উদ্যোগ ‘বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী পড়ি, নিজেকে গড়ি’ আনন্দময় পাঠদান কার্যক্রম। তারই অংশ হিসেবে গত মঙ্গলবার উপজেলার হারুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শনে যান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোসা. হাফিজা জেসমিন। এসময় বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী বিষয়ক পাঠদান ও শিক্ষার্থীদের সাথে কুশল বিনিময় করতে গিয়ে আপ্লূত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

উপস্থিত শিক্ষার্থীদের কাছে ইউএনও জানতে চান- বড় হয়ে তোমরা কি হতে চাও? তখন কেউ বলে শিক্ষক হবে,কেউ পুলিশ আবার কেউ ডাক্তার হওয়ার কথা বলতে থাকে। এমন সময় স্বর্ণা আক্তার নামে এক শিক্ষার্থী ইউএনওকে বলে আমি বড় হয়ে আপনার মতো ইউএনও হবো। এসময় ইউএনও স্বর্ণার খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন তার মা নেই। বিষয়টি জেনে ইউএনও’র মন ভার হয়ে যায়। পরে কোমলমতি শিক্ষার্থী স্বর্ণার সাথে একটি ছবি তোলেন তিনি ও আদর করে কাছে টেনে নেন। এসময় প্রাক-প্রাথমিকের আরেক শিক্ষার্থী কাউসার হঠাৎ মা বলে ডাক দিয়ে বসলো ইউএনওকে। তার ডাকে সাড়া দিয়ে কাছে গিয়ে তার মাথায় হাত বুলিয়ে কুশল বিনিময় করেন ইউএনও। একপর্যায়ে কাউসার বলে- তার মা নেই! এতে ফুটফুটে কাউসারের দিকে তাকিয়ে বিস্মিত হয়ে তাকে আদর করে ইউএনও বললেন, এখন থেকে প্রতিদিন তুমি বাসায় ফেরার সময় তোমার ম্যাডাডের কাছ থেকে আদর নিয়ে যাবে। পরে ইউএনও কাউসারের সাথেও একটি ছবি তোলেন। পাঠ্য কার্যক্রম পরিদর্শন,স্বর্ণা ও কাউসারের সাথে তোলা ছবি মঙ্গলবার রাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট করেন ইউএনও। স্বর্ণা ও কাউসারের ছবির ক্যাপশনে মায়ের ভূমিকায় লেখাগুলো পড়ে ইউএনওকে প্রশংসায় ভাসান নেটিজনেরা। আনন্দময় পাঠদান কর্মসূচির উদ্বোধন ও স্কুল পরিদর্শনের সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নীলুফার হাকিম।

এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোসা. হাফিজা জেসমিন বলেন, ছোটবেলা থেকে বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে জানার আগ্রহ সৃষ্টি করা এবং নিজেদের সেই আদর্শে দেশপ্রেমিক সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার আবশ্যিকতায় ‌‌‌‌‌‌ ‘বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী পড়ি, নিজেকে গড়ি কর্মসূচির বাস্তবায়নে জেলা প্রশাসক মো. মোস্তাফিজার রহমান স্যার দায়িত্ব দিয়েছেন। স্কুল পরিদর্শনে গিয়ে ছোট কোমলমতি শিক্ষার্থী স্বর্ণা ও কাউসারের কথা শুনে মুগ্ধ হয়েছি।তাই ওদের স্নেহ করে কাছে টেনে নিয়েছি। তিনি আরও বলেন,
বঙ্গবন্ধু এমন একজন মহান নেতা যার জন্ম না হলে বাংলাদেশ স্বাধীন হতো না। এই উদ্যোগের মাধ্যমে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা বঙ্গবন্ধুর সম্পর্কে ছোটকাল থেকেই জানতে পারবে, তাই উদ্যোগটি বাস্তবায়নে উপজেলার সকল প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষকদের গল্প বলার ছলে তাদেরকে ‘বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ পড়ানোর আহবান জানান তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

আরও পড়ুন